গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন স্থগিতের আদেশ বাতিল করে আগামী ২৮ জুনের মধ্যে ভোট করার নির্দেশ দিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত।

হাই কোর্টের দেওয়া স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের দুই মেয়র প্রার্থীর আবেদন এবং নির্বাচন কমিশনের লিভ টু আপিলের নিষ্পত্তি করে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার সদস্যের বেঞ্চে বৃহস্পতিবার এই রায় দেয়।

১৫ মে ভোটের দিন রেখে গত ৩১ মার্চ গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছিল ইসি। তারপর ভোটের সব প্রস্তুতি সারা হচ্ছিল; প্রার্থীদের পাল্টাপাল্টি বক্তব্যের সঙ্গে প্রচারও জমে উঠেছিল।

কিন্তু এর মধ্যেই ঢাকার সাভারের শিমুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এ বি এম আজহারুল ইসলাম সুরুজ গত ৬ মে হাই কোর্টে একটি রিট আবেদন নিয়ে যান। শিমুলিয়ার ছয়টি মৌজা গাজীপুর সিটি করপোরেশনে অন্তর্ভুক্তির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করেন তিনি।

আওয়ামী লীগ নেতা সুরুজের ওই আবেদনে হাই কোর্ট গত ৬ মে ঢাকার লাগোয়া এই সিটি করপোরেশনের নির্বাচন তিন মাসের জন্য স্থগিত করে দেয়। আদেশের খবর পেয়ে ইসিও গাজীপুরে ভোটের সব কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়।

ওই নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার, আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম চেম্বার আদালতের অনুমতি নিয়ে হাই কোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে আবেদন করেন। চেম্বার বিচারপতি আবেদন দুটি শুনানির জন্য পাঠিয়ে দেন আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে।

বুধবার সেই শুনানিতে হাজির হয়ে নির্বাচন কমিশনের আইনজীবীও হাই কোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করার কথা জানালে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ তিন আবেদন একসঙ্গে শোনার জন্য বৃহস্পতিবার দিন রাখে।

রিটকারী এম আজহারুল ইসলাম সুরুজের পক্ষে বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ। নির্বাচন কমিশনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. ওবায়দুর রহমান মোস্তফা।

দুই প্রার্থীর মধ্যে বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য হাসান উদ্দিন সরকারের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, জয়নুল আবেদীন ও মাহবুব উদ্দিন খোকন। আর গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের পক্ষে শুনানি করেন এ এম আমিন উদ্দিন ও শফিকুল ইসলাম বাবুল।