৫০ হাজার কৃষক, “কৃষক সভা” করার উদ্দেশ্যে ভারতের মুম্বাইয় শহরের পথে। মিছিলে বাড়ছে মানুষের সংখ্যা। ঋণ মকুব, ফসলের ন্যায্য দাম, লাঙল যার, জমি তার থেকে আদিবাসীদের অরণ্যের জমির উপরে অধিকারের মতো একগুচ্ছ দাবি নিয়ে ৬ মার্চ থেকে কাঁধে কাস্তে-হাতুড়ি আঁকা লাল পতাকা নিয়ে কাতারে কাতারে কৃষক হেঁটে আসছেন মুম্বাইয়ের দিকে।

বিজেপি শাসিত মহারাষ্ট্রেই সিপিএমের কৃষক সভার ডাকে এ আন্দোলনে যোগ দেয় কৃষকরা। ফলে মহারাষ্ট্রের বিজেপি সরকারক আছে ব্যপক চাপে।

এদিকে জানা গেছে, সোমবার মুম্বাইতে আজাদ ময়দানের কাছেই কৃষকদের পদযাত্রা আটকে দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে রাজ্য প্রশাসন। কিন্তু কৃষকরা যেভাবে এগিয়ে আসছেন তাতে উদ্বিগ্ন বিজেপি সরকার।

কৃষক সভার মহারাষ্ট্র রাজ্য কমিটির সাধারণ সম্পাদক অজিত নাওয়ালের বরাত দিয়ে একাধিক ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে- ‘‘হেঁটে আসা কৃষকদের সংখ্যাটা আগামী কাল ৬০ হাজারও ছাপিয়ে যেতে পারে।’’

এরআগে বুলেট-ট্রেন-সুপার হাইওয়ের মতো প্রকল্প করে বিজেপি সরকার জনগণের ভরাসার আসনে আরো শক্তভাবে বসতে চাচ্ছিলেন। কিন্তু ঘটনা ঠিক বিপরীত ঘটেছে, এই সব প্রকল্পের নামেই জমি অধিগ্রহণের বিরোধিতায় কৃষকরা পথে নেমেছেন।

যদিও মহারাষ্ট্রে দেবেন্দ্র ফডণবীসের সরকার ৩৬ হাজার কোটি টাকার ঋণ মকুবের কথা ঘোষণা করেছেন। কিন্তু কৃষকদের বক্তব্য ভিন্ন। তাদের মতে সরকার এমন সব শর্ত রেখেছে যে ঋণের খুব সামান্য টাকাই মকুব হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে ফসল নষ্ট হলেও ক্ষতিপূরণ মিলছে না। বুলেট ট্রেন-সুপার হাইওয়ের নামে আদিবাসীদের জমি কেড়ে নেওয়া হচ্ছে। প্রতি বছর ভারতে কয়েক হাজার কৃষক আত্বহত্যা করেন ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে।

তথ্যসূত্রঃ ছাড়পত্র