সতেজ চাকমা: পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা উপজেলার গৌমতি ইউনিয়নে আবারো মো:আলম নামের এক সেটলার বাঙালী কতৃক ত্রিপুরা কিশোরী (১৩) ধর্ষনের প্রতিবাদে ও ধর্ষনে অভিযুক্ত ব্যাক্তির দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তির দাবীতে পিসিপি ঢাকা মহানগর ও হিল উইমেন্স ফেডারেশর ঢাকা মহানগর শাখার যৌথ উদ্যেগে এক বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সকাল ১০.০০ ঘটিকার সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে ভিসি চত্বর ঘুরে টিএসসির রাজু ভাস্কর্য পেরিয়ে শাহবাগের প্রজন্ম চত্বরে গিয়ে শেষ হয় ।পরে সেখানে প্রতিবাদী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

হিল উইমেন্স ফেডারেশন ঢাকা মহানগর শাখার সভানেত্রী চন্দ্রা ত্রিপুরার সভাপতিত্বে পিসিপি ঢাকা মহানগর শাখার সাধারন সম্পাদক নিপন ত্রিপুরার সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের ঢাকা মহানগর শাখার সদস্য ব্যবিলন চাকমা।

এছড়া সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আদিবাসী ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সাধারন সম্পাদক রিবেং দেওয়ান, ত্রিপুরা স্টুডেন্স ফোরাম (টিএসএফ) এর ঢাকা মহানগর শাখার সভাপতি অসীম রায় ত্রিপুরা, বাংলাদেশ আদিবাসী নারী নেটওয়ার্ক এর যুগ্ম আহ্বায়ক রাখি ম্রং,হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভানেত্রী মুনিরা ত্রিপুরা ও পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সদস্য সতেজ চাকমা প্রমুখ ।

স্বাগত বক্তব্যে ব্যবিলন চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে ধর্ষনের ঘটনা আজকে নতুন নয়। পাহাড়ে সেটলার বাঙালী কতৃক অসংখ্য পাহাড়ী নারীকে ধর্ষন ও ধর্ষনের পর হত্যা করা হয়েছে । কিন্তু পূর্ববর্তী ঘটনাগুলোর সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার না হওয়ার ফলে বিশ্ব নারী দিবসের দিনেও পাহাড়ে জুম্ম নারী ধর্ষনের ঘটনা সংগঠিত হচ্ছে ।

সংহতি বক্তব্যে ছাত্রনেতা রিবেং দেওয়ান বলেন,পার্বত্য চট্টগ্রামে সেটলার বাঙালী কতৃক পাহাড়ী মানুষদেরর্র্ উপর সংগঠিত অধিকাংশ হত্যা,গনহত্যা,ধর্ষন,অগ্নিসংযোগ,নির্যাতন, নিপীড়নের মত মানবাধিকার লংঘনের ঘটনাগুলোর সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার হয় না।বিচার হীনতার এ সংস্কৃতির আড়ালে পাহাড়ী গনমানুষের মধ্যে যে ক্ষোভ সৃষ্টি হচ্ছে সেই ক্ষোভ আবারো বিষ্ফোরিত হতে বেশী সময় লাগবে না ।তিনি সরকারকে হুশিয়ারী দিয়ে স্মরিয়ে দেন যে, শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে পাহাড়ীদের দীর্ঘ ২২ বছরের সশস্ত্র সংগ্রামের ইতিহাস রয়েছে ।

অসীম রায় ত্রিপুরা তীব্র ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, নারী দিবসের দিনে যেখানে নারীর স্বাধীনতা,সম-অধিকার ও সম-মর্যাদার কথা বলা হচ্ছে সেই দিনেও পাহাড়ে সেটলার বাঙালী কতৃক ত্রিপুরা নারী ধর্ষনের ঘটনা সংঘটন অত্যন্ত ন্যাক্কারজনক। তিনি অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত মো: আলমের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবী জানান ।

বাংলাদেশ আদিবাসী নারী নেটওয়ার্কের যুগ্ম আহ্বায়ক নারী নেত্রী রাখি ম্রং বলেন, বর্তমানে যে দল ক্ষমতায় সে দল অসাম্প্রদায়িক,গনতান্ত্রিক বাংলাদেশ সৃষ্টির জন্য ’৭১ এর মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছিল । এ সরকার যদি প্রকৃতপক্ষে গনতাস্ত্রিক ও অসাম্প্রদায়িক হয় তবে নিশ্চয় এ সরকার পাহাড় এবং সমতলে আদিবাসী নারী ধর্ষনের ঘটনাগুলোর সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার করবে ।


নারী নেত্রী মুনিরা ত্রিপুরা বলেন, ১৯৯৬ সালে হিল উইমেন্স ফেডারেশনের তৎকালীন সাংগঠনিক সম্পাদিকা কল্পনা চাকমাকে নিরাপত্তা বাহিনী কর্তৃক অপহরন করা হয়েছে। এছাড়া পাহাড়ে অসংখ্য জুম্ম নারীকে সেটলার বাঙালী কর্তৃক ধর্ষন ও ধর্ষনের পর হত্যা করা হয়েছে । কিন্তু সে ঘটনাগুলোর সুষ্ঠু বিচার এখনো পায়নি। কল্পনার রক্তের উত্তরসূরী হিসাবে এসব নিপীড়ন ও মানবাধিকার লংঘনের হিসাব একদিন কড়ায় গন্ডায় নেব ।

সতেজ চাকমা বলেন, পাহাড়ে একের পর এক ধর্ষনের ঘটনা সংঘটনের মূলে রয়েছে বিচার হীনতার সংস্কৃতি এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূণাঙ্গ ও যথাযথ বাস্তবায়ন না করা।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, বিগত ২২ জানুয়ারী বিলাইছড়ির ওড়াছড়ি গ্রামে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য কর্তৃক যে মারমা কিশোরীদের একজনকে ধর্ষন ও অপর জনকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে পাহাড়ে এবং সমতলে যে গনজোয়ার উঠেছে সেই গনমানুষের কথা আমলে নিয়ে যদি অভিযুক্তদের বিচারের আওতায় আনা হত তাহলে পুনরায় এ ঘটনা সংঘঠিত হত না ।
তিনি পার্বত্য চট্টগ্রাম সমস্যাকে সমাধানের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূর্ণাঙ্গ ও দ্রু ত বাস্তবায়ন এবং অভিযুক্ত মো: আলমের যথাযথ শাস্তির দাবী করেন ।

সভাপতির বক্তব্যে নারী নেত্রী চন্দ্রা ত্রিপুরা বলেন, মো: আলমের মত ভাইরাসদের পাহাড় থেকে ছড়াতে পার্বত্য চট্টগ্রামে আবারো বারুদের আগুন জ্বালানোর জন্য তরুন জুম্ম প্রজন্মকে প্রস্তুত হতে হবে ।
তিনি আরো বলেন, পার্বত্য চুক্তি স্বাক্ষরের সময়ে অস্ত্র জমা দিলে ও বিদ্যা-বুদ্ধি জমা দিইনি ।এ বিদ্যা বুদ্ধি প্রয়োগে পার্বত্য চট্টগ্রামের মানুষ আর সময় নিবে না বলে সরকারকে হুশিয়ার করেন এ নারী নেত্রী।

উল্লেখ্য যে, গতকাল ৮ মার্চ বিশ্ব নারী দিবসে খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা উপজেলার গৌমতি উপজেলায় মো: আলম নামের এক সেটলার বাঙালী কর্তৃক এক ত্রিপুরা কিশোরী ধর্ষিত হয় ।পরে ধর্ষনের শিকার কিশোরীকে মাটিরাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়া হলে অবস্থা বেগতিক দেকে কর্তব্যর ত চিকিৎসক কিশোরীকে খাগড়াছড়ি হাসপাতালে রেফার করেন ।ধর্ষনে অভিযুক্ত মো: আলমকে স্থানীয় পুলিশ গ্রেফতার করেছে ।