বিভিন্ন সময় চাঁদাবাজি ও অপহরনের ঘটনায় দলীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি দিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি। দলটির বান্দরবান জেলা শাখার জ্যেষ্ঠ নেতাকর্মীরা ২২ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে এই স্মারকলিপি প্রদান করেন। এ সময় জেলার আইন শৃঙ্খলার সার্বিক পরিস্থিতি ও রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়।

স্মারকলিপি প্রদান অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক জনসংহতি সমিতির নেতা কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, গণতান্ত্রিক দেশে অধিকার আদায়ের আন্দোলন করতে কোন অসুবিধা নাই। তবে তা হবে শান্তিপূর্ণ উপায়ে।

তিনি আরও বলেন, পাহাড়ে চাঁদাবাজি ও অপহরনের কারণে ব্যাপক দুর্নাম রয়েছে। এই দুর্নাম থেকে বের হয়ে আসতে পারলে সবার জন্য মঙ্গল হবে।

আলোচনার এক পর্যায়ে জনসংহতি সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য কে. এস. মং মারমা বলেন, বিভিন্ন সময় জনসংহতি সমিতির নাম ভাঙ্গিয়ে কিছু সন্ত্রাসী গোষ্ঠী চাঁদা আদায় করছে। এতে শুধু বান্দরবান জেলা নয়, জনসংহতির ভাবমূর্তিও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এই সুযোগে বিরোধী পক্ষ আমাদের দলীয় নেতাকর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে চলছে। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে সুষ্ঠু তদন্তের দাবিও জানান তিনি।

এ সময় পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় সকল রাজনৈতিক দলকে সহাবস্থানের আহবান জানিয়ে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভাল রয়েছে। কোন রাজনৈতিক দলের আচরণে যেন এই ভাবমূর্তি নষ্ট না হয়।

পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবরে একটি স্মারকলিপি দেওয়া হয়।

এ সময় জনসংহতি সমিতির বান্দরবান জেলা শাখার সভাপতি উছোমং, কেন্দ্রীয় নেতা ও আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য সাধুরাম ত্রিপুরা মিল্টন এবং হিল উইমেন্স ফেডারেশনের বান্দরবন সদরের সহ সভানেত্রী ওয়াইচিংপ্রুসহ দলের জ্যেষ্ঠ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সকল উপজেলায় এ কর্মসূচি পালিত হয়।