নিজস্ব প্রতিবেদকঃ গত ৮ অক্টোবর ২০১৬ সকাল ৮ টায় রাঙ্গামাটির বরকল উপজেলা বাজারে বরকল সদর ২২ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মসজিদের ইমাম মোঃ রাজ্জাক (৭০) কর্তৃক বরকল রাগীব রাবেয়া কলেজের ২য় বর্ষের এক চাকমা ছাত্রী শ্লীলতাহানীর শিকার হয়েছে।
জানা যায়, ঘটনার দিন শনিবার ছিল বরকল বাজারের হাটবার। ওই দিন সকালে ওই ছাত্রী বাজার করার সময় ইমাম রাজ্জাক ছাত্রীটিকে প্রথমে বুকে স্পর্শ করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। পরে আবার পিছন থেকে স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয়। এতে ছাত্রীটি তার পায়ের জুতা দিয়ে ওই ইমামের গালে আঘাত করে। ওই ইমাম ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।
ঘটনার পর ওই ছাত্রীটিকে বিজিবি সদস্যরা তাদের চেক পোষ্টে নিয়ে ঘটনা সম্পর্কে জিঙ্গাসাবাদ করে ছেড়ে দেয়। এ সময়ে বিজিবির পক্ষ থেকে উপযুক্ত বিচার করার আশ্বাস দেয়। কিন্তু এক দিন পরে অথাৎ ৯ অক্টোবর ২০১৬ জোন কমান্ডার মোঃ আলাউদ্দিন আল মামুন প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করে উল্টো ঘটনাকে ষড়যন্ত্র বলে আখ্যা দিয়ে ভিন্ন দিকে প্রবাহিত করার চেষ্টা করছে। এ ঘটনা ষড়যন্ত্র ও বিজিবির ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য সংঘটিত করা হয়েছিল বলে তার দাবী।
জানা গেছে, এ ঘটনার আগেও ওই ইমাম কয়েকজন নারীর সাথে অশোভন আচরণ করেছিল। কিন্তু মান-সম্মানের ভয়ে কেউ বিচার দাবী করেনি। এ ঘটনার পরে ভুক্তভোগী অনেক নারী বিজিবি মসজিদের ইমামের সমালোচনা করেছেন। এক সময় ওই ইমাম মো: রাজ্জাক বিজিবিতে চাকরী করেতেন। পেনশনে যাওয়ার পরে বিজিবির মসজিদে ইমামতি শুরু করেন।